দেশ ছাড়ার আপ্রাণ চেষ্টা

এখানে ক্লিক করে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটিও সাবস্ক্রাইব করুন নিয়মিত আপডেট পেতে

দেশ ছাড়ার আপ্রাণ চেষ্টা

সুদীপ পাল

প্রাণ যায় যাক কিন্তু অন্ধকার সময়ে জীবনযাপন করা অসম্ভব তাই প্রাণের তোয়াক্কা না করে বিমান ধরার জন্য ছুটছেন আফগানবাসীরা। বিমানের দরজা আঁকড়ে অথবা বিমানের টায়ার আঁকড়ে নিজেদের মাতৃভূমি ছেড়ে চলে যেতে চাইছেন তাঁরা। কাবুল জয়ের পর আফগানিস্তানে যুদ্ধ শেষ বলে নিজেদের বিজয়ী ঘোষণা করেছে তালিবানরা। তালিবানদের এই জয়ের ফলে কুড়ি বছরের মার্কিন নেতৃত্বাধীন বাহিনীর উপস্থিতির পরিসমাপ্তি ঘটলো।

আফগানবাসীরা যখন দেশছাড়ার যন্ত্রনা নিয়ে নিজেদের ভূমি ত্যাগ করার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তখন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলছেন “আফগানরা দাসত্বের শৃঙ্খল ভেঙ্গেছে।” তালিবানরা ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছে, এবার থেকে দেশের নাম হবে ইসলামিক এমিরেটস অফ আফগানিস্তান। আফগানিস্তানে অনেক ভারতীয় বসবাস করতেন তাঁদের কিভাবে ভারতে ফিরিয়ে আনা যায় তা নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই কাবুল থেকে ১৩০ জন ভারতীয়কে নিয়ে মঙ্গলবার দেশে ফিরেছে ভারতীয় বায়ুসেনার বিমান। এর আগে সোমবার রাতে আরও একটি বিমানে করে ভারতীয়দের দেশে ফেরানো হয়েছে। তাঁদের মধ্যে দূতাবাসের কর্মী ও নিরাপত্তারক্ষীরা রয়েছেন। ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের তরফে বলা হয়েছে, ‘‘আমরা আফগান শিখ এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের সঙ্গে ক্রমাগত যোগাযোগ রেখে চলেছি। যাঁরা আফগানিস্তান ছাড়তে চান, তাঁদের ভারতে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া সহজ করব।’’

আমরা যদি ইতিহাসের দিকে ফিরে তাকাই তাহলে দেখব, গত ৩ মাস ধরে চলা টানা লড়াইয়ে কান্দাহার, জালালাবাদ, গজনি ইত্যাদি আফগান প্রদেশ একের পর এক আফগান প্রদেশ তালিবানরা দখল করেছে। এর আগে আফগানিস্তান ১৯৯০-এর দশকে তালিবানি মধ্যযুগীয় শাসন দেখেছে। কিন্তু ৯/১১ হামলার পরে আমেরিকার ন্যাটো বাহিনী আফগানিস্তান থেকে তালিবান শাসনকে খতম করে। তারপর নিজস্ব ধারায় আফগানিস্তান যখন উন্নতির দিকে পা বাড়াচ্ছে ঠিক তখনই এই বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের এপ্রিলে আমেরিকার ঘোষণা করে, আফগানিস্তান থেকে তাদের সেনা সম্পূর্ণ ভাবে সরিয়ে দেওয়া হবে। এই ঘোষণার পরেই তালিবানরা ফের ক্ষমতা প্রদর্শন শুরু করে। তারই পরিণাম আজ আফগানিস্তান দখল।

তালিবান শব্দের আক্ষরিক অর্থ হল, কট্টর ইসলামিক শিক্ষায় শিক্ষিত ছাত্র। এদের লক্ষ্য খুব সহজ ভাবে বললে দুটি। প্রথমত ইসলামিক রাজ্য গঠন। দ্বিতীয়ত শরিয়ত আইন লাগু করা। তালিবানদের সব সময় সমর্থন জানিয়েছে পাকিস্তান। কাবুল জয়ের পরে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা বার্তাও জানানো হয়েছে। আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক মহল মনে করছে পাকিস্তান এবার থেকে ভারত বিরোধিতার ক্ষেত্রে আফগানিস্তানকে ব্যবহার করবে। ভারতের সীমান্ত সুরক্ষায় তালিবানদের কাবুল দখল যে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হয়ে দাঁড়াল সে কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। এশিয়ার রাজনীতি এবং ভারতবর্ষের সীমান্ত নীতি কি হয় তাই এখন দেখার অপেক্ষা।

(বিষয় বা মতামত একেবারেই লেখকের ব্যক্তিগত। তার দায় দুর্গাপুর দর্পণ কর্তৃপক্ষের নয়।) দুর্গাপুর দর্পণ- যোগাযোগ- 9434312482

Durgapur Darpan

খবর তো আছেই। সেই সঙ্গে শিক্ষা, সংস্কৃতি, স্বাস্থ্য, রান্না সহ আরও নানা কিছু। Durgapur Darpan আপনার নিজের মঞ্চ। যোগাযোগ- ই-মেইল- durgapurdarpan@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *