ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে দাদাগিরির অভিযোগ

কুমারেশের দাবি, টাকা জমা দেওয়ার ড্রপ বক্সের ছবি তুলতে গেলে তাঁকে পাশের জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে মারধর করা হয়। ডান চোখের নিচে গুরুতর চোট পান তিনি।

——————————————-

সনাতন গরাই, দুর্গাপুর দর্পণ, দুর্গাপুর, ৫ ডিসেম্বর ২০২৩: ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে দাদাগিরির অভিযোগ উঠেছে পশ্চিম বর্ধমান জেলার (Paschim Bardhaman) দুর্গাপুরে। জরিমানার টাকার রসিদ চাইলে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। পুলিশ অভিযোগ খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছে।

ডিএসপি টাউনশিপের আইস্টাইনের বাসিন্দা ডিএসপি কর্মী কুমারেশ রায় সপরিবারে সিটিসেন্টারে গিয়েছিলেন। চার চাকা গাড়ি নিয়ে যখন গান্ধীমোড় সংলগ্ন রিকল পার্কের ট্রাফিক চেক পয়েন্টে আসেন, তখন সিট বেল্ট না পরে গাড়ি চালানো এবং গাড়ির লাইসেন্সের রিন্যুয়ালের সময়সীমা পেরিয়ে যাওয়ার জন্য জরিমানা করা হয়। 

 

কুমারেশ জানান, রবিবার বিকাল পাঁচটা নাগাদ ঘটনাটি ঘটে। জরিমানা হিসাবে ১ হাজার টাকা ড্রপ বক্সে ফেলে দেওয়ার জন্য তাঁদের বলা হয়। কুমারেশ ও তাঁর ছেলে কল্লোল রসিদ দাবি করেন। তা না দিয়ে অনলাইন পেমেন্ট করবেন বলে জানান। কুমারেশের দাবি, টাকা জমা দেওয়ার ড্রপ বক্সের ছবি তুলতে গেলে তাঁকে পাশের জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে মারধর করা হয়। ডান চোখের নিচে গুরুতর চোট পান তিনি।

ঝামেলা ঝঞ্ঝাট বাড়ছে দেখে এরপর তাঁদের নামে ২ হাজার টাকার চালান কেটে রসিদ দিয়ে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। তাহলে ১ হাজার টাকা বিনা রসিদে জমা দিতে কেন বলা হয়েছিল? সেই টাকার রসিদ চাওয়ায় কেন মারধর করা হল? প্রশ্ন ওই পরিবারের। ছেলে কল্লোল পুণেতে তথ্য প্রযুক্তি কর্মী হিসাবে কর্মরত। এমন পরিস্থিতিতে পড়ে তিনি রীতিমতো আতঙ্কিত। যদিও এসিপি (ট্রাফিক) তুহিন চৌধুরী বলেন, ‘‘ ট্রাফিক পুলিশ জরিমানা করলে অনেকেই টাকা নেওয়ার অভিযোগ তোলেন।’’ মারধরের অভিযোগ ভিত্তিহীন বলেও দাবি করেন তিনি। (বিশেষ বিশেষ ভিডিও দেখতে DURGAPUR DARPAN ইউটিউব চ্যানেলটিও সাবস্ক্রাইব করুন)।

Leave a Comment

error: Content is protected !!
mission hospital advt