দুর্গাপুরের যুবতীকে অ্যাসিড ছোড়ার দায়ে ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড বারুইপুরের যুবকের

২০২১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর যুবতী যখন পরিচারিকার কাজ করতে একটি বাড়িতে যাচ্ছিল সেই সময় রফিক তাঁকে অ্যাসিড ছুঁড়ে চম্পট দেয়।

——————————————-

দুর্গাপুর দর্পণ, দুর্গাপুর, ৭ ডিসেম্বর ২০২৩: পশ্চিম বর্ধমান জেলার (Paschim Bardhaman) দুর্গাপুরের ডিএসপি টাউনশিপের বি-জোনের আইনস্টাইন-জেসি বোস রোড বস্তির এক যুবতীকে ২০২১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর অ্যাসিড ছোড়ার অভিযোগ উঠেছিল এক যুবকের বিরুদ্ধে। সেই রাতেই পুলিশ বারুইপুর থেকে গ্রেফতার করে আনে অভিযুক্ত যুবক মহম্মদ রফিক ওরফে রফিক মন্ডলকে। বৃহস্পতিবার দুর্গাপুর আদালতের বিচারক তাকে ১০ বছর সশ্রম কারাদন্ড এবং ১লক্ষ টাকা জরিমানার সাজা ঘোষণা করেন।

২০১৯ সালে যুবতীর মোবাইলে রং নম্বর ফোন আসে। সেই সূত্রেই রফিকের সঙ্গে যোগাযোগ হয় যুবতীর। যুবতী  স্বামী পরিত্যক্তা ও ২ সন্তানের মা। ধীরে ধীরে তাদের ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। একদিন রফিক বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে যুবতীর বাড়িতে আসে। কিন্তু যুবতীর পরিবার না করে দেয়।

রফিক যদিও যোগাযোগ বন্ধ করেনি। যুবতী তার নম্বর ব্লক করে দিলে সে অন্য নম্বর থেকে ফোন করত। তাকে বিয়ে না করলে অন্য কাউকে বিয়ে করতে দেবে না বলে হুমকি দিত রফিক। ২০২১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর যুবতী যখন পরিচারিকার কাজ করতে একটি বাড়িতে যাচ্ছিল সেই সময় রফিক তাঁকে অ্যাসিড ছুঁড়ে চম্পট দেয়।

যুবতী বাঁদিকের গাল, কাঁধ, হাতের একাংশ পুড়ে যায়। দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। পুলিশ অভিযুক্তের খোঁজ শুরু করে। গভীর রাতে মোবাইলের টাওয়ার লোকেশন অনুসরণ করে বারুইপুর থেকে গ্রেফতার করা হয় রফিককে। দুর্গাপুর আদালতে তোলা হলে বিচারক জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠান। তখন থেকে সে ছিল সংশোধানগারেই।

ভারতীয় দন্ডবিধির ৩২৬ এ ধারায় মামলা দায়ের হয়। মোট ১০জন সাক্ষী দেন। মঙ্গলবার দুর্গাপুর আদালতের ফার্স্ট অ্যাডিশন্যাল সেশন জাজ শৈলেন্দ্র কুমার সিং রফিককে দোষী সাব্যস্ত করেন। বৃহস্পতিবার তার ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ডের নির্দেশ দেন বিচারক। (বিশেষ বিশেষ ভিডিও দেখতে DURGAPUR DARPAN ইউটিউব চ্যানেলটিও সাবস্ক্রাইব করুন)।

Leave a Comment

error: Content is protected !!
mission hospital advt